Home / আন্তর্জাতিক / ১৪ বছরের ফিলিস্তিনী বন্দিনীকে মুক্তি দিল ইসরাঈল

১৪ বছরের ফিলিস্তিনী বন্দিনীকে মুক্তি দিল ইসরাঈল

ফিলিস্তিনের রামাল্লার উত্তরের আল-জাজলোন শরণার্থী ক্যাম্প থেকে আটক কনিষ্ঠতম ফিলিস্তিনী বন্দিনীকে শুক্রবার মুক্তি দিয়েছে ইসরাঈলী কর্তৃপক্ষ। ১৪ বছর বয়সী ঐ কিশোরীর নাম মালাক মোহাম্মদ ইউসেফ আল ঘালিজ।

মে মাসে এক দল ইসরাঈলীর উপর ছুরি নিয়ে হামলা চালানোর অভিযোগে তাকে আটক করা হয়েছিলো। গতকাল ইসরাঈলের হাসারোন কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আল ঘালিজ। তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি নারী ও মেয়েদের ইসরাঈলী জেলে কঠিন অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়।

ফিলিস্তিনি স্বাধীনতা সংগঠনের বন্দি কমিটির হিসাব মতে, মুক্তি পাওয়ার আগে আল-ঘালিজই ছিলো ইসরাঈলের কারাগারের কনিষ্ঠতম ফিলিস্তিনী বন্দিনী। তাকে রামাল্লাহ ও জেরুজালেমেরে মধ্যবর্তী কোয়ানদিয়া চেকপয়েন্টের কাছ থেকে আটক করেছিলো ইসরাঈলী বাহিনী।

৬ই ডিসেম্বর জেরুজালেমকে্ ইসরাঈলের রাজধানীর স্বীকৃতির ঘোষণা দেন ট্রাম্প। এরপর ফিলিস্তিন জুড়ে শুরু হয়েছে তুমুল ‍বিক্ষোভ। এর প্রতিবাদে ৮ই ডিসেম্বর থেকে ফিলিস্তিনীদের ইন্তিফাদা বা সর্বাত্মক প্রতিরোধ অব্যাহত রয়েছে। এ সময়ে ইসরাঈলী বাহিনীর হামলায় অন্তত ১৫ ফিলিস্তিনী নিহত হয়েছে। নারী ও শিশুসহ গ্রেফতার হয়েছে ৬২০ জন। এমনকি ছোট শিশুদের ধরে নিয়ে খাঁচায় বন্দি করে রাখার মতো বর্বরোচিত ঘটনার ফুটেজও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত রয়েছে।

প্যালেস্টাইনিয়ান প্রিজনার্স ক্লাব (পিপিসি)-এর হিসাবে, ইসরাঈলী বাহিনীর হাতে গ্রেফতার ফিলিস্তিনীদের মাঝে ১২ জন নারী ও ১৭০টি শিশুও রয়েছে। এছাড়া, আহত অবস্থায় ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বেশিরভাগকেই রাতের অাঁধারে সামরিক অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের, একটা বড় অংশই ট্রাম্পের ঐ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ বিক্ষোভে শামিল হতে গিয়ে ইসরাঈলী বাহিনীর ধরপাকড়ের শিকার হয়েছেন। এ থেকে মুক্তি পায়নি বিদেশীরাও। আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে তুরস্কের ৩ নাগরিককে তুলে নিয়ে যায় ইসরাঈলী বাহিনী। পরে অবশ্য দু’জনকে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়। আনাদোলু।

About superadmin

Check Also

তুরস্ক মার্কিন পণ্যের বিশাল অর্ডার বাতিল করেছে

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোগান যুক্তরাষ্ট্রের ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য বয়কটের আহ্বানের পর, আইফোনের ৫০ মিলিয়ন ডলারের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *