Home / আন্তর্জাতিক / মিসরে গির্জায় হামলার ঘটনায় নিহত বেড়ে ১১

মিসরে গির্জায় হামলার ঘটনায় নিহত বেড়ে ১১

মিসরের কায়রোর শহরতলীর কপটিক অর্থোডক্স গির্জা ও একটি দোকানে বন্দুকধারীর হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১১ জন হয়েছে বলে জানিয়েছে গির্জাটির কর্মকর্তারা। তবে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ ঘটনায় ২ নারীসহ ৫ জন আহত হয়েছে। আহত ২ নারীর অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মিসরে গির্জায় হামলার ঘটনায় নিহত বেড়ে ১১ এর ছবি ফলাফল

এ হামলার ঘটনায় সশস্ত্র আইএস দায় স্বীকার করেছে; যদিও তাদের বার্তা সংস্থা আমাকে এক বিবৃতিতে এ দাবি করলেও এর পক্ষে কোনো প্রমাণ দাখিল করা হয়নি।

আগামী ৭ই জানুয়ারি কপটিক খৃষ্টানদের বড়দিন উপলক্ষে গির্জাটিতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছিলো। মিশরের বড় গির্জাগুলোর প্রত্যেকটির প্রবেশ পথে মেটাল ডিটেক্টর বসিয়ে নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের মোতায়েন করা হয়েছে। এর মাঝেই হামলার ঘটনাটি ঘটে।

নিরাপত্তা বাহিনী ও রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম হামলায় অন্তত ২ জন অংশ নিয়েছে বলে জানিয়েছিলো। বলা হচ্ছিলো, এদের একজন নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছে; অন্যজন ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু পরে জানায়, হামলায় একজন অংশ নিয়েছে এবং তাকে আহত অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘটনার দু; রকম ব্যাখ্যা সম্পর্কে মন্তব্য করেনি।

কপটিক গির্জাটি জানিয়েছে, ঐ বন্দুকধারী কায়রোর হেলুয়ানে গির্জা থেকে ৪ কিলোমিটার দূরে খৃষ্টান মালিকানাধীন একটি দোকানে ২ জনকে হত্যা করে। পরে তারা মার মিনা গির্জায় হামলা চালায়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, হামলাকারী গির্জার প্রবেশ পথে গুলি করে এবং একটি বোমা নিক্ষেপের চেষ্টা করে।

গির্জায় সে এক পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৮ জনকে হত্যা করে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও কপটিক গির্জা। পরে আহত এক নারী হাসপাতালে মারা যায় বলে জানিয়েছে গির্জাটি। এতে গির্জায় চালানো হামলায় নিহত বেসামরিকের সংখ্যা ৯ জনে দাঁড়ায়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, নিরাপত্তা বাহিনী তাৎক্ষণিকভাবে হামলাকারীকে প্রতিরোধ করে এবং আহত অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করেছে। তদন্তকারীরা হামলাকারী বন্দুকধারীকে শনাক্ত করেছে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। হামলাকারী গত বছর থেকে এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি হামলায় অংশ নিয়েছে বলেও জানিয়েছে তারা।

সম্প্রতি মিশরের খৃষ্টান অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে বেশ কয়েকটি হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। গত বছর থেকে মিশরের বিভিন্ন স্থানে খৃষ্টানদের ওপর হামলায় একশ’র বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। সিনাই উপদ্বীপে সুন্নী এ সশস্ত্র গোষ্ঠীর বিদ্রোহ মোকাবিলা করছে মিশরের নিরাপত্তা বাহিনী। মে মাসে সশস্ত্র একটি হামলায় ২৯ জন নিহত হন। এর এক মাস আগে ২টি বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহত হয়। রয়টার্স।

About superadmin

Check Also

তুরস্ক মার্কিন পণ্যের বিশাল অর্ডার বাতিল করেছে

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোগান যুক্তরাষ্ট্রের ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য বয়কটের আহ্বানের পর, আইফোনের ৫০ মিলিয়ন ডলারের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *