Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / পশ্চিমা সাংস্কৃতিক আগ্রাসন রুখতে ইরানে প্রাথমিক স্কুলে ইংরেজি নিষিদ্ধ

পশ্চিমা সাংস্কৃতিক আগ্রাসন রুখতে ইরানে প্রাথমিক স্কুলে ইংরেজি নিষিদ্ধ

দ্রব্য মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বড় ধরনের বিক্ষোভের পর প্রাথমিক স্কুলে ইংরেজি ভাষা পড়ানো নিষিদ্ধ করেছে ইরান। ৮০টি শহরে ছড়িয়ে পড়া বিক্ষোভে ২১ জন নিহতের ঘটনার মাত্র এক সপ্তাহের মাঝে ইরান এ ঘোষণা দিলো। তবে মাধ্যমিক পর্যায় থেকে ইংরেজি চালু থাকবে।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে উচ্চ শিক্ষা কাউন্সিলের প্রধান মেহদি নাভিদ-আধাম বলেন: সরকারি ও বেসরকারি প্রাথমিক স্কুলের আনুষ্ঠানিক পাঠ্য তালিকায় ইংরেজি শিক্ষা রাখা আইন ও নিয়মবিরোধী। শিক্ষার্থীদের ইরানি সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ শেখানোর জন্যে প্রাথমিক শিক্ষা গুরুত্বপূর্ণ।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লাহ আলী খামেনী কয়েক দিন আগে বলেছিলেন: অল্প বয়সে ইংরেজি ভাষা শেখানোর ফলে পশ্চিমা মূল্যবোধ সাংস্কৃতিক আগ্রাসন চালানোর পথ পেয়ে যায়। সর্বোচ্চ নেতার বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলো।

খামেনী প্রায়ই ইরানে পশ্চিমা প্রভাবের সমালোচনা করে আসছেন। ২০১৬ সালে তিনি প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে ইংরেজি ভাষা শিক্ষা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন।

২৮ ডিসেম্বর ইরানে প্রাথমিকভাবে অর্থনৈতিক সংকট এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভের সূচনা হলেও পরে তা সরকারবিরোধী বিক্ষোভে পরিণত হয়। উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর মাশহাদে শুরু হওয়া বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে তেহরানসহ অন্যান্য শহরে। ১৯৭৯ সালের ইসলামী বিপ্লবের পর, প্রথমবারের মতো উত্তাল স্লোগান উঠেছে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, ঘুষ-দুর্নীতি কিংবা হুথি-হিজবুল্লাহ-ফিলিস্তিনকে সমর্থনের বিরুদ্ধে। সরকারের দেয়া প্রতিশ্রুতি আর বাস্তবতার ফারাকের কারণে সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনীই হয়ে উঠেছেন ক্ষোভের লক্ষ্যবস্তু। সূত্র: বিজনেস ইনসাইডার।

About superadmin

Check Also

ইরাকের নির্বাচনে হস্তক্ষেপের চেষ্টা করছে সৌদি আরব: ইরাক

ইরাকের আসন্ন সংসদ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে সৌদি আরব। আল-মায়াদিন টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *