Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / আপাতত এড়ানো গেছে তুরস্ক-যুক্তরাষ্ট্র সংঘাতের শঙ্কা

আপাতত এড়ানো গেছে তুরস্ক-যুক্তরাষ্ট্র সংঘাতের শঙ্কা

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচ. আর. ম্যাকমাস্টার ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন গত সপ্তাহে তুরস্ক সফর করেন। তুরস্ক-মার্কিন সম্পর্কে উত্তেজনা কমাতেই তারা তাদের মধ্যপ্রাচ্য সফরে তুরস্ককে অন্তর্ভুক্ত করেন। তুরস্ক ও যুক্তরাষ্টের মাঝে সম্পর্কে কয়েকটি জটিল বিষয়ের একটি হলো সিরিয়ার আফরিনে তুরস্কের চলমান সামরিক অভিযানটি তুরস্ক ইদলিবে সম্প্রসারিত করতে চায়। সেখানে মার্কিন সেনারা আছে। যুক্তরাষ্ট্র কুর্দি পিপলস প্রটেকশন ইউনিটের (ওয়াইপিজি) যোদ্ধাদের অস্ত্র, গোলাবরুদ ও প্রশিক্ষণ প্রদান করছে।

গত সপ্তাহের বৃহস্পতিবারে তুরস্ক সফরের আগে টিলারসন বৈরুতে বলেন যে, যুক্তরাষ্ট্র ওয়াইপিজিকে ভারী অস্ত্র দেয়নি। তাই ফিরিয়ে নেয়ার মত কিছু নেই। তার এ কথা এর আগে মার্কিন কর্মকর্তাদের দেয়া বক্তব্যের বিরোধী – যারা বলেছিলেন যে, যুক্তরাষ্ট্র ওয়াইপিজিকে দেয়া অস্ত্রের কঠোর হিসাব রাখছে। দায়েশ (ইসলামিক স্টেট-আইএস) পরাজিত হওয়ার পর তা ফেরত নেয়া হবে। তুরস্কে খুব অল্প লোকই মার্কিন প্রতিশ্রুতিকে বাস্তব সম্মত বলে মনে করেন। তাই বলে, এ রকম নির্লজ্জের মতো তা অস্বীকার করা হবে বলে তারা ভাবেননি।

তুর্র্কি পররাষ্টমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু এ কথা বলে উত্তেজনা আরো বাড়িয়ে দেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আলোচনা হবে গ্রহণ করো অথবা ত্যাগ করো ভিত্তিতে। যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনা বৃদ্ধি এড়িয়ে গেছে এবং এ সফর কোনো সাফল্য আনেনি, বরং দু’পক্ষই মধ্য-মার্চের আগে ফললাভ ভিত্তিক ব্যবস্থা নেয়ার ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছেছে।

রয়টার্স নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তুর্কি কর্মকর্তার বরাতে জানায়, আলোচনার সময় তুর্কি রাষ্ট্রপতি রজব তাইয়েব এরদোগান মানবিজ থেকে ওয়াইপিজিকে বহিষ্কার এবং তাদের পরিবর্তে সেখানে তুর্কি ও মার্কিন সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব করেন। টিলারসন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র গুরুত্বের সাথে তা বিবেচনা করবে।

তুরস্ক মনে করে যে, যুক্তরাষ্ট্র তার উদ্বেগ গুরুত্বের সাথে বোঝার চেষ্টা করে না। আঙ্কারা আশা করে যে, যুক্তরাষ্ট্র তুরস্কের দৃষ্টিকোণ থেকে ঘটনা মূল্যায়ন করবে এবং তুরস্কের দিককে অগ্রাধিকার দেবে; যদিও সিরিয়া ও অন্য কয়েকটি বিষয়ে তুরস্কের ভূমিকা যুক্তরাষ্ট্র পরিষ্কার জানে। উত্তেজনার মূল কারণ হলো বোঝার অভাব নয়, বরং দু’দেশের জাতীয় স্বার্থের মধ্যে অসামঞ্জস্য ও অগ্রাধিকারের পার্থক্য।

প্রথমত, এটা সিরিয়ার উত্তরে কুর্দি অঞ্চলকে স্বায়ত্তশাসনের দিকে ঠেলে দেবে। মার্কিন সিনেটে পেশ করা সিআইএ, এফবিআই ও ন্যাশনাল সিকিউরিটি এজেন্সির (এনএসএ) রিপোর্টে এ অবস্থা ব্যাখ্যা করা হয়েছে। এনএসএ পরিচালক ড্যান কোটস মার্কিন গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের বিশ্বব্যাপী হুমকি মূল্যায়ন উপস্থাপনায় বলেনঃ পিকেকে-র সিরীয় মিলিশিয়া ওয়াইপিজি সম্ভবত সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে এক ধরনের স্বায়ত্তশাসন চাইবে।

এ বাক্যটি তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী সংগঠন পিকেকে ও ওয়াইপিজির মধ্যে সম্পর্কের স্বীকৃতি। ওয়াইপিজিকে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন দিচ্ছে। অন্য কথায়, মার্কিন প্রশাসন পিকেকে-কে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে স্বীকার করে। কিন্তু তাদের সিরীয় মিলিশিয়াদের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রেখেছে। এ বাক্যটি মার্কিন মূল্যায়ন ও প্রত্যাশারও প্রতিফলন যে, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে একটি স্বায়ত্তশাসিত কুর্দি অঞ্চল প্রতিষ্ঠা এগিয়ে চলেছে। এটা তুরস্কের জন্য অত্যন্ত উদ্বেগজনক এক দুঃস্বপ্ন।

দ্বিতীয়ত, ইসরাঈলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে উত্তর সিরিয়ায় একটি কুর্দি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পথ উন্মুক্ত করার মার্কিন নীতির অঙ্ক হিসেবে কুর্দি স্বার্থকে তুলে ধরা। এ আলোকে এটা স্বীকার করাটা বেশি বাস্তব সম্মত যে, সিরীয় সঙ্কট বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্ক এক মত পোষণ করে না। দু’জন শীর্ষ মার্কিন কূটনীতিকের তুরস্ক সফরের আসল উদ্দেশ্য ছিলো দু’ ন্যাটো মিত্রের মাঝে সম্পর্কের দূরত্ব কমিয়ে আনা। কিন্তু বৈঠকের পর দেয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তি নানা কথায় পূর্ণ এবং বাস্তবসম্মত পদক্ষেপের কথা তাতে কমই বলা হয়েছে। এতে বিতর্কিত বিষয় নিরসনে কোনো নিশ্চয়তা নেই। অধিকতর যুক্তিসঙ্গত হচ্ছে এ অসামঞ্জস্যতার ব্যাপারটি অগ্রাধিকার দেয়া এবং দু’দেশের মাঝে ব্যবধান কমিয়ে আনার ব্যাপারকে গুরুত্ব দেয়া।

এ বিশ্লেষণে তুরস্ক ও রাশিয়ার মাঝে সহযোগিতা জোরদারের বিষয়টি আনা হয়নি – যারা এ মুহূর্তে সিরিয়ায় সবচেয়ে প্রভাবশালী দেশ। তুরস্ক আন্তরিকতার সাথেই রাশিয়ার সহযোগিতা করছে এবং তা আঙ্কারাকে মাঠ পর্যায়ের বাস্তবতার ভিত্তিতে তার সিরিয়া নীতি সমন্বিত করার সুযোগ দেবে। তুরস্ক-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের ক্ষেত্রে এ মুহূর্তের একমাত্র স্বস্তি হচ্ছে যে, একটি ট্রেন দুর্ঘটনা, অর্থাৎ একটি সংঘাতের আশঙ্কা এড়ানো গেছে। আরব নিউজ।

About superadmin

Check Also

হুদায়দা বিমানবন্দর পতনের খবর নাকচ করেছে হুথি বিদ্রোহীরা

ইয়েমেনের জনপ্রিয় হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলনের যোদ্ধারা সৌদি সেনাদের হাতে হুদায়দা বিমানবন্দর পতনের খবর নাকচ করেছে। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *