Home / রাজনীতি / দেশ আওয়ামী লীগ না, অন্য কেউ চালায়: ফখরুল

দেশ আওয়ামী লীগ না, অন্য কেউ চালায়: ফখরুল

দেশ আওয়ামী লীগ না, অন্য কেউ চালায়, এমন প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন: আমার তো মাঝে মাঝে সন্দেহ হয় সত্যিই কি আওয়ামী লীগ দেশ চালাচ্ছে, নাকি অন্য কেউ? যে দল গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করেছে, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জন্য লড়াই করেছে; তারা এভাবে দেশ চালাতে পারে না।

গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল। অসুস্থ থাকাকালে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদের সমালোচনাও করেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি আরো বলেন: সরকার গণতন্ত্রের কথা বলে অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থা চাপিয়ে দিচ্ছে। একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চাপিয়ে দিয়েছে। গণতন্ত্রকে বিকৃত করেছে। এ কারণেই আমার সন্দেহ হচ্ছে যে, আওয়ামী লীগ কি সত্যিই দেশ চালাচ্ছে নাকি অন্য কেউ দেশ চালাচ্ছে?

সভা সমাবেশ করতে না দেয়ার সমালোচনা করে তিনি বলেন: খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে তার নেতৃত্বেই বিএনপি আগামী নির্বাচনে যাবে। তাকে ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে যাবে – এ ধরনের কোনো গুঞ্জনে কান না দেবেন না। এ সময়, সরকারি খরচে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনি প্রচারণার সমালোচনাও করেন তিনি।

নির্বাচন কমিশন ও দুর্নীতি দমন কমিশনের কোনো ক্ষমতাই নেই উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন: সরকারের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে যা যা নির্দেশ দেয়া হচ্ছে, তারা তাই করছে। দুদকও একইভাবে কাজ করছে। আমাদের নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যাংকে সন্দেহজনক লেনদেনের অভিযোগ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। তার মধ্যে এমনও নেতা আছে যাদের ঐ ব্যাংকে কোনো একাউন্টই নেই।

বিএনপির মহাসচিব বলেন: আমরা চাই সত্যিকারের একটি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে। কিন্তু বর্তমানে যা চলছে, তাতে গণতন্ত্রের লেশমাত্র নেই। সেজন্য লড়াই করছেন খালেদা জিয়া। আমরা দেশে সত্যিকারের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চাই।

এদিকে, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অসুস্থতাজনিত কারণে আদালতে হাজির করা হয়নি। তবে আগামী ২২শে এপ্রিল পর্যন্ত খালেদা জিয়াসহ মামলার সব  আসামিকে জামিন দিয়েছেন আদালত। ঐদিন পরবর্তী শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এ আদেশ দেন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে ৮ই ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ টাকা অনিয়মের অভিযোগে ২০১০ সালে বেগম জিয়াসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। পার্সটুডে।

About superadmin

Check Also

প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন: রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেছেন, প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী আচরণ বিধি ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *