Home / আন্তর্জাতিক / প্রথম দেখায় উভয়েই নার্ভাস ছিলেন

প্রথম দেখায় উভয়েই নার্ভাস ছিলেন

প্রথম ৬০ সেকেন্ডেই দু’ নেতা একে অপরের ওপর প্রভাব বিস্তারে বেশ সচেষ্ট হয়ে উঠেছিলেন বলে জানিয়েছেন শরীরী ভাষা বিষয়ক এক বিশেষজ্ঞ।

সিঙ্গাপুরভিত্তিক ইনফ্লুয়েন্স সলিউশনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লিয়ং বলেন: হাত মেলানোর সময় দু’জনকেই সমকক্ষ মনে হচ্ছিলো। নিজেকে নেতা এবং বিষয়টির ওপর নিয়ন্ত্রণ আছে দেখাতে বেশ সচেতন ছিলেন ট্রাম্প।

প্রথম দেখায় ট্রাম্পই বেশি সময় ধরে কথা বলেছেন। কিম ছিলেন অত্যন্ত মনোযোগী। বৈঠক কক্ষে যাওয়ার আগে উত্তর কোরিয়ার নেতা অন্তত তিনবার ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকে কথা শোনার চেষ্টা করেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের বাহুতে চাপড় দিয়ে কিম মুখোমুখি সাক্ষাতে নিজের নিয়ন্ত্রণ আছে এটা দেখাতেও সচেষ্ট ছিলেন। উত্তর কোরীয় নেতার পিঠে হাত দিয়ে দ্বিগুণ বয়সী ট্রাম্প এরপর কিমকে লাইব্রেরীর পথ দেখিয়ে দেন – যেখানে দু’ নেতা একান্তে বৈঠক করেন।

বৈঠক কক্ষে বসার পরও দু’জনই স্নায়ুচাপজনিত উত্তেজনা লুকাতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানান লিয়ং। দু’ হাত দিয়ে অস্থিরতা ঢাকার চেষ্টার পাশাপাশি চটজলদি হাসিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন ট্রাম্প; খানিক ঝুঁকে থাকা কিমের চোখ ছিল মাটির দিকে।

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার এ শীর্ষ সম্মেলনে কোরীয় উপদ্বীপের ‘পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ’ ও দু’ কোরিয়ার মাঝে শান্তিচুক্তি নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা। দায়িত্বরত কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে উত্তরের কোনো শীর্ষ নেতার এটিই প্রথম মুখোমুখি সাক্ষাৎ!

বৈঠকের আগে কানাডায় অনুষ্ঠিত জি-৭ সম্মেলনের পর এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেছিলেন: উত্তর কোরিয়ার নেতা শান্তি প্রতিষ্ঠায় আন্তরিক কি না, দেখা হওয়ার প্রথম মিনিটেই তা বুঝে যাবো আমি। ভাল কিছু হতে যাচ্ছে কি না, খুব দ্রুতই তা আমি বুঝতে পারবো। কিছু হবে কি না, তাও দ্রুতই আমি জেনে যাবো বলেই মনে করছি। হয়তো এটি হবে না। আদৌ ইতিবাচক কিছু হবে, কী হবে না – তা আমি অতি দ্রুতই বুঝে যাবো। সূত্র: রয়টার্স।

About superadmin

Check Also

মানবাধিকার পরিষদ থেকে আমেরিকার পদত্যাগকে স্বাগত জানালো রাশিয়া

জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ থেকে আমেরিকার বেরিয়ে যাওয়াকে স্বাগত জানিয়েছে রাশিয়া। মস্কো বলেছে, এ সংস্থা কিছুই ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *