Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / মুসলিম খেদানো শুনেছিলাম এবার হিন্দু খেদানো দেখছি

মুসলিম খেদানো শুনেছিলাম এবার হিন্দু খেদানো দেখছি

ভারতের আসামে জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে নাম না থাকা বিপন্ন বাঙালিদের পাশে দাঁড়িয়েছেন দেশটির বিভিন্ন বুদ্ধিজীবী। শুক্রবার কলকাতা প্রেসক্লাবে তারা সংবাদ সম্মেলন করে নিজেদের অবস্থান ব্যক্ত করেছেন।

আসামে জারি হওয়া এনআরসিতে ৪০ লাখ মানুষের নাম নেই। এই ‘অমানবিক’ সিদ্ধান্ত উদ্বিগ্ন করেছে বিশিষ্টজনদের।

তাদের দাবি, আসামের কিছু অঞ্চলে প্রতি বছর বন্যা হয়। আর বন্যার পানিতে বাসস্থান তছনছ হয়ে যায় গরিব মানুষদের। দুর্যোগের সময় স্বাভাবিকভাবে হারিয়ে যাওয়া নানা নথিপত্র দেখাতে না পারার কারণে বহু সাধারণ মানুষ জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত খসড়া থেকে বাদ পড়েছেন।

কবি সুবোধ সরকার বলেন: জল আর পানিকে কোনো দিন আলাদা করা যায় না। হিটলারের চেয়েও খারাপ সময় চলছে। ৪০ লাখ মানুষের হৃদয়কে হত্যা করা হয়েছে।

প্রতিবাদসভায় সাহিত্যিক আবুল বাসার বলেন: এতোদিন শুনছিলাম মুসলমান খেদানো হবে। এখন দেখছি একে একে বাঙালি হিন্দুদেরও তাড়ানো হচ্ছে। আমরা যাবো কোথায়?

শিল্পী প্রতুল মুখোপাধ্যায় বলেন: আমি বাংলায় গান গাই। আমি অসমিয়াতেও গান গাই।

প্রতিবাদসভায় উপস্থিত ছিলেন, কল্যাণ রুদ্র, নৃসিংহ প্রসাদ ভাদুড়ি, অভিরূপ সরকার প্রমুখ।

সঞ্চালনা করেন শুভাপ্রসন্ন। তিনি বলেন: জয় গোস্বামী, শাঁওলি মিত্র, মনোজ মিত্র আজকের সভায় আসতে চেয়েছিলেন কিন্তু অসুস্থতার জন্য আসতে পারেননি।

অনুষ্ঠানে না আসতে পারা শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের বার্তা পাঠ করেন সুবোধ সরকার।

শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের বলেন: অনুপ্রবেশ শুধু আসামের নয়; বাংলারও সমস্যা। এবং সমস্যাটি গুরুতরও বটে। অনুপ্রবেশ বন্ধ করাও জরুরি। কিন্তু নাগরিকপঞ্জির অজুহাতে বৈধ নাগরিকদের উৎখাতের চেষ্টা দুর্ভাগ্যজনক। আসামে যা ঘটছে, তা আমাদের উদ্বেগের বিষয়। এর প্রতিক্রিয়া দূরপ্রসারী হওয়ার সম্ভাবনা। সূত্র: যুগান্তর।

About superadmin

Check Also

এরদোগান আবারো একে পার্টির চেয়ারম্যান হলেন

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ আবারো এরদোগান দেশটির ক্ষমতাসীন দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির (একে পার্টি) ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *